Breaking News

২০০টাকা না থাকায় হাসপাতালে দাঁড়িয়ে ছেলের মৃত্যু দেখল পরিবার

সংবাদ সারাদিন,মালদা : দালাল রাজ মালদা মেডিকেলে।সরকারি হাসপাতালে এমন ঘটনার সাক্ষী হল ইংরেজবাজার থানার যদুপুর-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের কমলাবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা ইয়াজুল শেখ। এই চক্রের ফাঁদে পড়ে মৃত্যু হয়েছে তার ছেলের।

রোগীকে ক্যাথেটার লাগানোর চার্জ ২০০ টাকা৷ টাকা দিতে না পারলে ক্যাথেটার লাগানো হবে না, মিলবে না বেডও৷ কোনও প্রত্যন্ত গ্রামে নয়, দালালরাজের এই ছবি খোদ মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে৷

পেটের সমস্যা নিয়ে মালদা মেডিকেল কলেজে ভরতি হন রমজান শেখ (১৯)৷ বাড়ি ইংরেজবাজারের যদুপুর-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের কমলাবাড়ি গ্রামে৷ বাবা ইয়াজুল শেখ শ্রমিকের কাজ করেন৷ অভিযোগ, ভরতির পর বেড পর্যন্ত রোগীকে নিয়ে যাওয়া ও বেড জোগাড় করে দেওয়ার জন্য দালালরা ২০০ টাকা দাবি করে৷ কিন্তু ইয়াজুল সাহেব তা দিতে রাজি হননি৷ ভোর পাঁচটা নাগাদ রমজানের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে ক্যাথেটার লাগানোর নির্দেশ দেন৷ সেই সময় মেডিসিন ২ ওয়ার্ডে কর্তব্যরত নার্সদের একাংশ পরিবারের লোকেদের জানান, ওয়ার্ডবয়রা ক্যাথেটার লাগানোর কাজ করে৷ আবার শুরু হয়ে যায় দালালরাজ৷ চলতে থাকে দর কষাকষি৷ ক্যাথেটার লাগানোর জন্য ইয়াজুল সাহেবের কাছে ২০০ টাকা দাবি করে দালালরা৷ ইয়াজুল সাহেব জানিয়েদেন, তাঁর কাছে এই মুহূর্তে টাকা নেই৷ রমজানের শারীরিক কষ্ট দেখে পার্শ্ববর্তী বেডে থাকা রোগীর পরিবারের লোকজনও ওয়ার্ডবয়দের ক্যাথেটার লাগিয়ে দেওয়ার অনুরোধ করেন৷ কিন্তু কার কথা কে শোনে! তাদের সাফ কথা, টাকা না পেলে ক্যাথেটার লাগানো হবে না৷ মৃত্যুর সঙ্গে দু’ঘণ্টা লড়াই করে সকাল সাতটা নাগাদ হার মানেন রমজান৷

ইয়াজুল সাহেব জানান, “গতকাল রাত ১১টায় ছেলেকে মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভরতি করেছিলাম৷ ছেলের পেটের সমস্যা হয়েছিল৷ প্রস্রাব হচ্ছিল না বলে ছেলের পেটে ব্যথা করছিল৷ ভোর পাঁচটা নাগাদ ডাক্তারবাবুরা নার্সদের কাছে যেতে বলেন৷ রমজানকে ক্যাথেটার লাগিয়ে দিতে বলে। কর্তব্যরত এক নার্সের কাছে যেতে উচ্চস্বরে তিনি জানান, ক্যাথেটার আমি লাগাব না৷ ওয়ার্ডবয়ের কাছে যান৷ ওয়ার্ডবয়ের কাছে ক্যাথেটার লাগানোর অনুরোধ করতেই ২০০টাকা দাবি করে সে৷ আমি তাকে জানাই, এখন আমার কাছে টাকা নেই৷ সকালে বাড়ির লোকজন এলে টাকা দিয়ে দেব৷ কিন্তু সে রাজি হয়নি৷ অবশেষে ব্যথা সহ্য করতে না পেরে সকালে ছেলে মারা যায়৷ শুধুমাত্র ক্যাথেটার না লাগানোর জন্য আমার ছেলে মারা গেল৷

যদিও এই প্রসঙ্গে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোনও পাওয়া যায়নি। তবে সরকারি হাসপাতালে টাকা ছাড়া কোনও কাজ হচ্ছে না তা আবারও বুঝিয়ে হাসপাতালের বাস্তব চিত্র।