Breaking News

‘যে কাজ পারো না, সেটা করো না,’ ভারতের মিশন চন্দ্রযান ২-কে অপমান পাক মন্ত্রীর

সংবাদ সারাদিন, ওয়েবডেস্ক: ব্যর্থ নয়, বরং ৯৫ শতাংশ সফল ভারত। মিশন চন্দ্রযান ২-কে ঠিক এভাবেই দেখছে দেশবাসী। কিন্তু স্বভাবসিদ্ধভাবেই একেবারে উলটো পথে হাঁটল পাকিস্তান। চন্দ্রযান ২ প্রত্যাশিত সাফল্য না পাওয়ায় যে দারুণ খুশি হয়েছে তারা, সেটাই স্পষ্ট করে প্রতিবেশী রাষ্ট্র। রীতিমতো টুইট করে উচ্ছ্বাস ব্যক্ত করলেন পাকিস্তানের বিজ্ঞান মন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরি।

চাঁদের পিঠে পা রাখার আগে ২.১ কিলোমিটার উচ্চতায় ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় ইসরোর। চাঁদের অন্ধকার দিকের রহস্য উন্মোচনে বেরিয়ে নিজের অন্ধকারে হারিয়ে যায় বিক্রম। দীর্ঘায়িত হয় উদ্বেগের সেই ১৫ মিনিট। কিন্তু ইতিবাচক সাড়া মেলেনি আর। ভোরের দিকে একপ্রকার নিশ্চিত হওয়া যায়, এবারের মতো সাফল্যের চূড়ায় পৌঁছনো হল না ইসরোর। ভারতীয় বিজ্ঞানীদের এই পরিশ্রম আর সাহসকে যখন কুর্নিশ জানাচ্ছে দেশবাসী, ঠিক তখনই কটাক্ষ উড়ে এল পড়শি দেশ থেকে। মিশন চন্দ্রযান ২ নিয়ে একের পর এক টুইট করে ভারতকে রীতিমতো অপমান করতে থাকেন ফাওয়াদ খান। তিনি লেখেন, “অঅঅ… যে কাজটা পারো না, সেটা করারই দরকার নেই। প্রিয় ‘এন্ডিয়া’।” ইন্ডিয়ার বানান বদলে ‘এন্ডিয়া’ লিখে মন্ত্রী বুঝিয়ে দিতে চেয়েছেন, ভারতের মিশন শেষ হয়ে গিয়েছে।

টুইটটি পোস্ট হতেই পাক বিজ্ঞান মন্ত্রীর বিরুদ্ধে তোপ দাগেন ভারতের নেটিজেনরা। একজন কটাক্ষের সুরেই লেখেন, “মজার বিষয় হল, চন্দ্রযান ২ ফাওয়াদ চৌধুরিকে সারা রাত জাগিয়ে রেখেছিল।” তবে শুধু ভারতীয়রাই নয়, পাকিস্তানের তরফেও সমালোচিত হয়েছেন মন্ত্রী। এক নেটিজেন লেখেন, “নিজেদের লজ্জায় ফেলা বন্ধ করুন। ভারত অন্তত চাঁদে পা রাখার চেষ্টা করেছে। আর আমরা চাঁদকে দেখার জন্য লড়াই করতে থাকি। যে কোনও দেশের বৈজ্ঞানিক প্রচেষ্টার প্রশংসা করা উচিত। আর সেখান থেকে অনুপ্রাণিত হওয়া উচিত।”

এসব সমালোচনায় অবশ্য দমানো যায়নি ফাওয়াদ চৌধুরিকে। এক নেটিজেনের টুইটে প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন, “ঘুমিয়ে পড়, চাঁদের বদলে ওই খেলনাটা মুম্বইয়ে নেমেছে।” আবার অন্য এক টুইটে লিখেছেন, “ভারতীয়রা অদ্ভুত প্রতিক্রিয়া দিচ্ছে। যেন আমার জন্য মিশন ব্যর্থ হয়েছে। আমি বলেছিলাম অকারণে ৯০০ কোটি টাকা নষ্ট করতে? এবার মাথা ঠান্ডা করে ঘুমিয়ে পড়ুন।” এখানেই থামেননি তিনি। ইসরো তথা দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাষণ নিয়েও বক্তব্য রেখেছেন। বলছেন, “মোদির কথা শুনে মনে হচ্ছে, ওঁ রাজনীতিবিদ নন, মহাকাশচারী। লোকসভায় মোদিকে প্রশ্ন করা উচিত, কেন গরিব দেশে ৯০০ কোটি টাকা নষ্ট এভাবে করা হল।”(তথ্য সৌজন্যে: প্রতিদিন)