Breaking News

এবার উত্তরপ্রদেশেও NRC! বাংলাদেশিদের শনাক্ত করে বিতাড়িত করার নির্দেশ যোগীর

সংবাদ সারাদিন, ওয়েবডেস্ক: অসমের পর এবার উত্তরপ্রদেশেও এনআরসির ইঙ্গিত! যোগী আদিত্যনাথ সরকারের একটি নির্দেশের পর এমনই আতঙ্ক ছড়িয়েছে দেশের বৃহত্তম রাজ্যে। যোগী প্রশাসনের তরফে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, উত্তরপ্রদেশে বসবাসকারী সমস্ত বাংলাদেশি এবং বিদেশিদের শনাক্ত করতে হবে এবং তাদের বিতাড়িত করতে হবে।

সূত্রের খবর, উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ডিজিপি সমস্ত জেলা পুলিশ প্রধানকে চিঠি দিয়ে এই নির্দেশ জারি করেছেন। রাজ্যের অভ্যন্তরীণ সুরক্ষার জন্য এই পদক্ষেপ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলেও ওই চিঠিতে জানানো হয়েছে। পুলিশের সমস্ত স্তরের আধিকারিকদের প্রান্তিক জেলার সমস্ত অঞ্চল, সীমান্তবর্তী এলাকায় ভাল করে খোঁজখবর নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কোনও সন্দেহজনক ব্যক্তি দেখলেই তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে এবং তাঁর কাছে নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র চাওয়া হবে। সেই ব্যক্তিকে যাবতীয় নথিপত্র দেখিয়ে প্রমাণ করতে হবে তিনি ভারতীয় নাগরিক। নথিপত্রে প্রশাসন সন্তুষ্ট না হলে তাঁকে বিতাড়িত করা হবে বলেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রশাসনের নির্দেশ মতো, ইতিমধ্যেই উত্তরপ্রদেশ পুলিশ নিজেদের কাজ শুরুও করেছে।

স্বাভাবিকভাবেই উত্তরপ্রদেশ সরকারের নয়া ফরমানে রাজ্যজুড়ে এনআরসি আতঙ্ক ছড়িয়েছে। যদিও উত্তরপ্রদেশ পুলিশের দাবি, এই সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র আভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার জন্যই রাজ্যে ধরপাকড় শুরু হয়েছে। এর সঙ্গে এনআরসির কোনও সম্পর্ক নেই। উল্লেখ্য, অসমে এনআরসির পর একাধিকবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী দেশজুড়ে এনআরসি করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। বিজেপি নেতারাও বারবার এনআরসির দাবি জানিয়েছেন। একই সঙ্গে নাগরিকত্ব সংশোধনীর মাধ্যমে শরণার্থী হিন্দুদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে বলেও ঘোষণা করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী।

সেক্ষেত্রে মূল সমস্যায় পড়বে বেআইনিভাবে ভারতে ঢুকে পড়া সংখ্যালঘুরা। উত্তরপ্রদেশ সরকারের নয়া সিদ্ধান্তের ফলে গোটা রাজ্যের সংখ্যালঘুদের মধ্যেই আতঙ্ক ছড়িয়েছে। নথিপত্র জোগাড়ের হয়রানির জন্যও আতঙ্কিত অনেকে। ভিটেমাটি হারিয়ে ছিন্নমূল হওয়ার ভয়ে ত্রস্ত উত্তরপ্রদেশের সংখ্যালঘুদের সমাজ।(তথ্য সৌজন্যে: প্রতিদিন )

error: Content is protected !!