Breaking News

ভারতের পাশে দাঁড়ালেই মিসাইল হামলা, কার্যত গোটা বিশ্বকে যুদ্ধের হুমকি পাক মন্ত্রীর

সংবাদ সারাদিন, ওয়েবডেস্ক: কাশ্মীর ইস্যুতে ফের আণবিক যুদ্ধের হুঙ্কার পাক মন্ত্রীর। তবে এবার শুধু ভারত নয়, কার্যত গোটা বিশ্বকেই মিসাইল হামলার হুমকি দিলেন তিনি। বিতর্ক উসকে পাকিস্তানের কাশ্মীর বিষয়ক মন্ত্রী আলি আমিন গানদাপুর সাফ বলেন, ‘যে দেশগুলি ভারতের পাশে দাঁড়াবে, তাদের শত্রু হিসেবে গণ্য করা হবে।’

জম্মু ও কাশ্মীরে সংবিধানের ৩৭০ ধারা রদ করার পর থেকেই লাগাতার যুদ্ধের হুমকি দিচ্ছে পাকিস্তান। রাষ্ট্রসংঘেও কাশ্মীর নিয়ে যথেষ্ট গলাবাজি করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তবে সন্ত্রাসের আঁতুড়ঘর পড়শি দেশটির সকল চেষ্টার নিট ফল দাঁড়ায় শূন্য। আমেরিকা, রাশিয়া থেকে শুরু করে ইসলামিক দেশগুলিও কাশ্মীর ইস্যুতে ইসলামাবাদের পাশে দাঁড়ায়নি। ফলে নিষ্ফল অক্রোশে ফুঁসছেন দেশটির নেতা-মন্ত্রীরা। ফলে মাঝে মাঝেই যুদ্ধের হুঙ্কার দিচ্ছেন তাঁরা। মঙ্গলবার এক সভায় পাকিস্তানের কাশ্মীর বিষয়ক মন্ত্রী আলি আমিন গানদাপুর বলেন, ‘কাশ্মীর নিয়ে ভারতের সঙ্গে উত্তেজনা সীমা ছাড়ালে যুদ্ধ করতে বাধ্য হবে পাকিস্তান। যে দেশগুলি নয়াদিল্লিকে সমর্থন দেবে তাদেরও শত্রু বলে গণ্য করা হবে। লড়াই শুরু হলে ভারতের সঙ্গে ওই দেশগুলিকেও মিসাইল হামলার মুখে পড়তে হবে।’

কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিল হওয়ার পর থেকেই এই ইস্যুতে আন্তর্জাতিক মহলে ভারতকে কোণঠাসা করার চেষ্টা করছে পাকিস্তান। রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার কমিশন থেকে শুরু করে প্রায় সমস্তরকম আন্তর্জাতিক ফোরামেই অভিযোগ করে পাকিস্তান। কিন্তু, সে অর্থে কিছু করে উঠতে পারেনি ইমরানের দেশ। উলটে অধিকাংশ দেশ নয়াদিল্লির পাশেই দাঁড়িয়েছে। রাশিয়া থেকে শুরু করে আমেরিকা, ফ্রান্সের মতো শক্তিধর দেশগুলি মোদি সরকারের সঙ্গই দিয়েছে। এমনকী রাষ্ট্রসংঘরে মানবাধিকার কমিশনে কাশ্মীর সংক্রান্ত চিনের আনা অভিযোগও খারিজ হয়ে গিয়েছে। এক কথায়, কাশ্মীর নিয়ে কূটনৈতিক মহলে পুরোপুরি ব্যর্থ পাকিস্তান। উল্লেখ্য, এর আগে কাশ্মীর ইস্যুতে পারমাণবিক যুদ্ধের হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন ইমরান খান৷ জি-৭ শীর্ষ বৈঠকে মোদি-ট্রাম্প সাক্ষাৎ থেকে কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতার সম্ভাবনা ভেস্তে যাওয়ার পরেই শক্তিধর রাষ্ট্রগুলিকেও পরোক্ষে হুমকি দিয়েছিলেন তিনি।(তথ্য সৌজন্যে: প্রতিদিন)