Breaking News

রাজ্য স্তরে শিশু বান্ধব পুলিশকর্মীর পুরস্কার পাচ্ছেন ইটাহারের ওসি অভিজিত দত্ত, খুশির হাওয়া পুলিশ মহলে

সংবাদ সারাদিন, ইটাহার: রাজ্য স্তরে শিশু বান্ধব পুলিশকর্মীর পুরস্কার পেতে চলেছেন উত্তর দিনাজপুর জেলার ইটাহার থানার ওসি অভিজিত দত্ত। ফলে খুশির হাওয়া ছড়িয়েছে ইটাহার থানার পুলিশ মহল থেকে জেলা পুলিশ প্রশাসনের মধ্যে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ইটাহার থানার ওসি অভিজিত দত্তের নামে রাজ্য স্তর থেকে শংসাপত্র এসেছে উত্তর দিনাজপুর জেলা পুলিশ প্রশাসনের কাছে। ফলে আগামী ২০ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে কলকাতার মোহরকুঞ্জ ভবনে এই পুরস্কার দেওয়া হবে।

আরও জানা গিয়েছে, ইটাহার থানার ওসি অভিজিত দত্ত তার কর্ম জীবনে প্রথম ২০০৮ সালে সাব ইন্সপেক্টর পদে প্রথম যোগ দেন দার্জিলিঙে। পরে ধীরে ধীরে কোচবিহার হয়ে উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুর থানায় রইলেও ২০১২ সালে উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদ থানায় ওসি হিসেবে কাজ করেন। ২০১৩ সালে উত্তর দিনাজপুর জেলার গোয়ালপুকুর থানায় ওসি হিসেবে কাজে যোগ দেন। দুই বছর কাজ করেন রায়গঞ্জ সাব ওসি হিসেবে। ২০১৫ সালে আবারও উত্তর দিনাজপুর জেলার গোয়াল পুকুর থানার ওসি হিসেবে কাজে যোগ দেন। দীর্ঘদিন বিভিন্ন থানার সঙ্গে যুক্ত থাকার পর অবশেষে ২০১৯ সালের ১৬ই জানুয়ারি ইটাহার থানার ওসি হিসেবে যোগদান করেন।

পুলিশ সূত্রে খবর, কর্মজীবনে গোয়ালপুকুর থানা সহ ইটাহারে পুলিশ প্রশাসনের বিভিন্ন ধরনের কাজ কর্মের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক নারী ও শিশু পাচার চক্র বন্ধ করা এবং একাধিক নাবালিকা সহ শিশু উদ্ধার করা সহ শতাধিক বাল্য বিবাহ বন্ধ করার কাজেও অভিজিত বাবুর সততার নিদর্শন রয়েছে। এমনকি গোয়ালপুকুর থানায় কর্মরত অবস্থায় এলাকার নিষিদ্ধ পল্লী থেকে ভিন রাজ্যের পাচার হওয়া এক নাবালিকা উদ্ধার নিয়ে পুলিশকে বাধার মুখে পড়তে হয় কয়েকবার। এমনকি অভিজিত দত্তকে প্রাণে মারার হুমকিও দেওয়া হয়েছিল।

তবুও বাংলা সহ অন্যান্য রাজ্য থেকে বহু পাচার হওয়া নাবালিকা উদ্ধার করে আনে অভিজিত বাবু। অভিজিত বাবুর নাবালিকা উদ্ধারকে ঘিরে অপরাধিদের মুখে গালিগালাজ শুনতে হলেও উদ্ধার হওয়া নাবালিকা ‌‌‌সহ তার পরিবারের কাছে ভগবানের মত ছিল বলে জানা গিয়েছে। এমনকি এই ধরনের কাজে ব্যক্তিগতভাবে বহু অর্থ খরচ হয়েছে তাঁর। অভিজিত বাবুর এই ধরনের কাজে দক্ষতার জন্য রাজ্য স্তর থেকে তাঁকে পুরস্কার দেওয়া হবে আগামী ২০ নভেম্বর কলকাতায়। ফলে খুশির হাওয়া ছড়িয়েছে জেলা পুলিশ মহলে।

জেলা পুলিশ সুপার সুমিত কুমার জানান, “আমাদের জেলার একজন সাব ইন্সপেক্টর অভিজিত দত্ত। নাবালিকা উদ্ধার, নারী ও শিশু পাচার সহ বাল্য বিবাহ বন্ধ করার ভাল কাজের জন্য পুরস্কার পেতে চলেছেন।”

তবে ইটাহার থানার ওসি অভিজিত দত্ত বলেন, “জেলা পুলিশ সুপার ও কমিশন থেকে জানিয়েছেন বিষয়টি। শুনে খুব ভাল লাগছে ও আনন্দ হচ্ছে। নির্দেশানুসারে আগামী ১৯শে নভেম্বর কলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা হব।”