Breaking News

১১ দিনে ৮ হাজার মানুষের মুখে অন্ন তুলে দিল পতিরাম নাগরিক ও যুব সমাজ

সংবাদ সারাদিন, পতিরাম: করোনা আবহে নানান সামাজিক কর্মকাণ্ডে ব্রতী থেকেছে পতিরাম নাগরিক ও যুব সমাজ। এমনকি লকডাউনের মত কঠিন পরিস্থিতিতে কর্মহীন, দুস্থ, অসহায় পরিযায়ী পরিবারের পাশে দাঁড়াতেও উদ্যোগী হন তারা।

ফলে গত ১১ দিন ধরে প্রায় ৮ হাজার মানুষের মুখে অন্ন তুলে দিলেন পতিরাম নাগরিক ও যুব সমাজের সদস্যরা। এই ১১ দিন যাবৎ প্রতিদিনই পতিরাম এলাকার প্রায় ৭০০ মানুষকে দুপুরের খাওয়ার বিতরণ করা হয়।

এদিকে সেখানে প্রায় রোজই তাদের কর্মকাণ্ডে সামিল হতে উপস্থিত ছিলেন জেলার তারকা থেকে শুরু করে প্রশাসনিক আধিকারিক, বিশিষ্ট সমাজসেবী ও বিভিন্ন শিল্পীরা।
এদিকে মঙ্গলবার সেই কমিউনিটি কিচেনের শেষদিন ছিল।

প্রসঙ্গত, লকডাউনের সময়কালে ১৭ মার্চ থেকে পতিরামের যুবক-যুবতীদের উদ্যোগে বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কাজ শুরু হয়। ৯৩ দিন পতিরামের ভবঘুরেদের এবং কিছু অসহায় মানুষের মধ্যে দুপুরের খাবার বিলি চলছে।

১২০০ পরিবারের মধ্যে ত্রাণ বিলি, দুস্থ মহিলাদের মধ্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন বিলি, শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ, করোনা যোদ্ধাদের মাস্ক, পিপিই কিট ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার সহ নানারকম সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এদিকে সংস্থার কমিউনিটি কিচেনে হাজির ছিলেন ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক, সঙ্গীত শিল্পী মেখলা দাশগুপ্ত, জেলার আঞ্চলিক পরিবহণ দফতরের আধিকারিক, নাট্য ব্যক্তিগত, সমাজসেবী সহ বিশিষ্টজনেরা।

এবিষয়ে পতিরাম নাগরিক যুব সমাজের কনভেনর বিশ্বজিৎ প্রামাণিক বলেন, “লকডাউনে কর্মহীন ও পরীযায়ী দুস্থ পরিবারগুলি নানান সমস্যায় রয়েছে। বিশেষত খাদ্যের অভাব। তাই তাদের পাশে দাঁড়াতে আমাদের যুব সমাজের সদস্যরা কমিউনিটি কিচেনের মাধ্যমে প্রতিদিন ৭০০ মানুষের মুখে অন্ন তুলে দিয়েছেন।

১১ দিনে মোট ৮ হাজার মানুষকে এই কমিউনিটি কিচেনের মাধ্যমে সাহায্য করতে পেরেছি। অনেক বিশিষ্ট মানুষ আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। তাতে আমরা খুবই খুশি।”

এবিষয়ে সঙ্গীত শিল্পী মেখলা দাশগুপ্ত বলেন, “সোশ্যাল মিডিয়ায় পতিরামের কমিউনিটি কিচেনের ছবি দেখতাম। খুব ভালো লাগত। তাই আমি সেখানে গিয়েছিলাম। খুবই ভালো লেগেছে। এই সময় দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই।”