Breaking News

ইটাহার কৃষি দফতরের উদ্যোগে শুরু সুনিশ্চিত ধান চাষের প্রদর্শনী

সংবাদ সারাদিন, ইটাহার: সরকারি সাহায্য বিজ্ঞান সম্মত উন্নত মানের তুলাই পাঞ্জি ধান, সার, কীটনাশক সহ আরও অন্য দুই রকম সুনিশ্চিত ধান চাষের প্রদর্শনী ক্ষেত্র শুরু হয়েছে ইটাহার ব্লক কৃষি দফতরের উদ্যোগে। বৃহস্পতিবার এমনি ছবি দেখা গেল ইটাহার ব্লকের কাপাশিয়া অঞ্চলের মানাই নগর গ্রামের মাঠে মাঠে। এই উন্নত মানের ধান চাষ করলে ফলন ভাল হয় ও বাজারে দাম বেশি পাওয়া যায়। এই ধানে পোকা মাকড় কম হয়। ফলে ফসলের তেমন ক্ষতি হয় না। তাই এই উন্নত মানের ধান চাষ করতে সমস্ত সরঞ্জাম ব্লক কৃষি দফতর থেকে দিয়ে উৎসাহিত করা হচ্ছে কৃষকদের।

এই বিষয়ে এলাকার কৃষক সাজেরুল ইসলাম বলেন, “আমি সহ এলাকার বেশ কিছু কৃষক ইটাহার ব্লক কৃষি দফতরের সহযোগিতায় বিজ্ঞান সম্মত তুলাই পাঞ্জি ধান, কালো ও হাইব্রিট ধান চাষের প্রর্দশনী মূলক চাষ শুরু করেছি। কৃষি দফতরের দেওয়া ধানের বীজ সহ সরঞ্জাম দিয়ে চাষ শুরু করা হয়েছে। কিছু টা ফাঁকা করে লাইন ধরে ধানের চারা রোপণ করা হচ্ছে। তাতে বিভিন্ন রোগের হাত থেকে ধান গাছগুলো কিছুটা রেহাই পাবে ও পোকামাকড়ের আক্রমণ কম হবে। সঙ্গে নতুন রোগ বা জীবাণুর হাত থেকে রেহাই পাওয়া যাবে বলে কৃষি দফতরের তরফে জানানো হয়েছে আমাদের।”

বিজ্ঞান সম্মত উপায়ে কৃষি দফতরের নির্দেশ মতো ধান চাষ করলে খুব কম খরচে ভাল ফলন পাওয়া যাবে এবং মাটির উর্বরতাও ভাল থাকবে। পাশাপাশি ধান চাষের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ধান চাষের জন্য সার ও কীটনাশক পাওয়া গিয়েছে আগামী দিনেও প্রয়োজন মতো পাওয়া যাবে। তুলাই পাঞ্জি ও হাইবিট ধান চাষের ফলন বৃদ্ধি পাওয়ার সঙ্গে কালো ধান চাষের ফলন বৃদ্ধি পায় ও কালো ধানের চালের ভাত খেলে অনেক কঠিন রোগের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া সহ বাজারেও ভাল দাম পাওয়া যায়। সে কারণেই এই তিন ধরনের ধান চাষ শুরু করা হয়েছে প্রদর্শনী মূলক ভাবে ইটাহার ব্লক কৃষি দফতরের সহযোগিতায়।

ব্লক কৃষি দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, ইটাহার ব্লক জুড়ে আতমা প্রকল্প ও আরকেভিওয়াই প্রকল্পে তুলাই পাঞ্জি ধান সহ কালো ও হাইব্রিট ধান পাঁচশো হেক্টর জমিতে প্রদর্শনী মূলক ভাবে করা হলেও অনেক কৃষক নিজেদের উদ্যোগে কয়েকশো বিঘাতে এই তিন ধরনের ধান চাষ শুরু করেছে। ফলে তাদের কেউ সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে কৃষি দফতর থেকে।