Breaking News

পুলিশের গাড়ি আটকে চাঁচলে তৃণমূল ছাত্র নেতাকে মুক্ত করার চেষ্টা! পুলিশি লাঠিচার্জ-এ ছত্রভঙ্গ বিক্ষোভ

সংবাদ সারাদিন, চাঁচল : তৃণমূল নেতাকর্মীদের অবস্থান-বিক্ষোভ ঘিরে তুমুল উত্তেজনা ছড়াল চাঁচল থানার সামনে। গ্রেফতার হওয়া তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতাকে পুলিশের গাড়ি থেকে ছাড়ানোর চেষ্টার অভিযোগ বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যাপক লাঠিচার্জ করে পুলিশ। মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে মালদার চাঁচল থানার সামনে। এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে চাঁচল শহর জুড়ে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে নামানো হয়েছে কমব্যাট ফোর্স। যদিও পুলিশের বিরুদ্ধে দাদাগিরির অভিযোগ তুলেছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। পুলিশের পক্ষ থেকে ওই তৃণমূল ছাত্র নেতার বিরুদ্ধে পুলিশকর্মীদের নিগ্রহ করার অভিযোগ তোলা হয়েছে‌। অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে চাঁচল। 

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লক তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি বিমান ঝাঁ। সোমবার দশমীর রাতে প্রতিমা দেখতে বেরিয়ে পুলিশের সঙ্গে গোলমাল পাকায়। রাতে চাঁচল শান্তিপুর মোড়ে যানজট এড়াতে পুলিশি নজরদারির ব্যবস্থা করেছিল। কিন্তু মোটর বাইক নিয়ে ওই তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা জোরপূর্বক যাওয়ার চেষ্টা করে। তখনই কর্তব্যরত পুলিশকর্মীরা তাদের আটকায়। কিন্তু সেই সময় ওই ছাত্রনেতা পুলিশদের কটুক্তি করে বলে অভিযোগ‌। এরপর চাঁচলের এক ট্রাফিক অফিসারকে নিগ্রহ করা হয় বলে অভিযোগ। তাতে পুলিশ ওই তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতাকে গ্রেফতার করে চাঁচল থানায় নিয়ে আসে।

এদিকে মঙ্গলবার সকালে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের ব্লক সভাপতি গ্রেফতার হয়েছেন, এই বিষয়টি জানাজানি হতেই হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লক জুড়ে ব্যাপক শোরগোল পড়ে যায়। এদিন সকালে সংশ্লিষ্ট ব্লকের তৃণমূল ছাত্র যুব সংগঠনের নেতাকর্মীরা চাঁচল থানার সামনে এসে পুলিশের বিরুদ্ধে অন্যায় ভাবে সংগঠনের সভাপতি বিমান ঝাঁকে গ্রেফতারের ঘটনায় অবস্থান-বিক্ষোভে বসে। দীর্ঘক্ষণ চলতে থাকে সেই অবস্থান বিক্ষোভ। দুপুরে এই বিক্ষোভের মধ্যেই ধৃত ওই তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতাকে চাঁচল মহকুমা আদালতে নিয়ে যাওয়ার সময় থানার গেটের সামনে বিক্ষোভকারী কর্মী-সমর্থকরা পুলিশের গাড়িতে থেকে তৃণমূল নেতাকে ছাড়ানোর চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। এরপর পুলিশ ব্যাপক লাঠিচার্জ করে। পুলিশের লাঠিপেটায় চারজন তৃণমূল ছাত্র ও যুব সংগঠনের কর্মী জখম হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তৃণমূল নেতৃত্ব।

এদিকে এই ঘটনায় পাল্টা পুলিশের বিরুদ্ধে অন্যায় ভাবে লাঠিপেটার অভিযোগ তুলে ফের বিক্ষোভ, অবস্থান চলতে থাকে। দুপুর ২টা পর্যন্ত চাঁচল থানা ঘেরাও করে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ ও যুব সংগঠনের কর্মী, সমর্থকেরা। এই বিক্ষোভের পরিস্থিতির কথা জানতে পেরে চাঁচল মহকুমার পদস্থ পুলিশ কর্তারা ঘটনাস্থলে আসেন। দীর্ঘক্ষণ আলোচনার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

হরিশ্চন্দ্রপুরের তৃণমূলের যুব নেতা স্বপন চৌধুরী বলেন,”অন্যায় ভাবে ছাত্র সংগঠনের সভাপতিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার প্রতিবাদ জানাতে গেলে চাঁচল থানার পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে।”

এদিকে চাঁচল মহকুমা আদালতে যাওয়ার পথে গ্রেফতার হরিশ্চন্দ্রপুর ব্লকের তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি বিমান ঝাঁ বলেন, “আমি কোনও দোষ করি নি। বাইক নিয়ে এক আত্মীয়র বাড়ি যাচ্ছিলাম। কিন্তু পুলিশ আমার বাইকটা আটকায়। আমার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে। এরপরই বাকবিতণ্ডার মধ্যেই আমাকে গ্রেফতার করা হয়। এদিন অন্যায় ভাবে পুলিশ বিক্ষোভ চলাকালীন সংগঠনের কর্মী সমর্থকদের লাঠিপেটা করেছে।”

চাঁচল এসডিপিও সজল কান্তি বিশ্বাস জানিয়েছেন, নিয়ম সকলের জন্য এক। তবে যে ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে আপাতত পুলিশি হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

এদিকে চাঁচল থানার পুলিশ জানিয়েছেন, ট্রাফিক অফিসারকে নিগ্রহ করার অভিযোগে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লক সভাপতি বিমান ঝাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদিন দুপুরে চাঁচল মহাকুমা আদালতে নিয়ে যাওয়ার পথেই ওই সংগঠনের কর্মী, সমর্থকরা চাঁচল থানার সামনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। পুলিশের গাড়ি থেকে অভিযুক্ত নেতাকে ছাড়ানোর চেষ্টা করা হয়। বাধ্য হয়ে লাঠিচার্জ করতে হয়েছে।