Breaking News

কালিয়াগঞ্জে ভূমিপুত্র প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর পূর্ণাবয়ব মূর্তি উন্মোচন

সংবাদ সারাদিন, কালিয়াগঞ্জ: নেতাজী জন্মজয়ন্তীর দিনে বাংলার অপর এক কৃতি সন্তান কালিয়াগঞ্জের ভূমিপুত্র প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর পূর্ণাবয়ব মূর্তির আবরণ উন্মোচন হল। উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ পুরসভার উদ্যোগে শহরের ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে শ্রীকলোনী ভবানীমন্দিরের সামনে প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর পূর্ণাবয়ব মূর্তি স্হাপন করা হয়েছে। শনিবার বিকেলে কালিয়াগঞ্জের ভূমিপুত্র জননেতা প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর পূর্ণাবয়ব মূর্তির আবরণ উন্মোচন করেন বিধায়ক তপন দেবসিংহ। এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কালিয়াগঞ্জের পুর প্রশাসক শচীন সিংহরায়। উপস্থিত ছিলেন পুর প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য বসন্ত রায়, কমল ঘোষ, ঈশ্বর রজক, পুর নির্বাহী অফিসার আশুতোষ বিশ্বাস।

এই অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্লক ও শহর কংগ্রেসের সভাপতি সুজিত দত্ত এবং তুলসী জয়সোয়াল ছারাও প্রিয়দার রাজনৈতিক শিষ্য তপন কুন্ডু, পঙ্কজ পাল, খোকন কুন্ডুর মতো বহু মানুষ। সংসদীয় রাজনীতিতে সুবক্তা হিসেবে পরিচিত প্রয়াত কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সী সর্বভারতীয় রাজনীতির মঞ্চে পরিচিত মুখ। পাশাপাশি ছিলেন সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি। কালিয়াগঞ্জ শহরের এই শ্রীকলোনী ভবানীমন্দিরে অদূরে বাড়ি প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর। এই ভবানীমন্দির গড়ে উঠেছিল তার ঐকান্তিক উদ্যোগে। ২০০৮ সালে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী থাকাকালীন আচমকা অসুস্থ হয়ে কোমায় চলে যান প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সী। হাসপাতালের শয্যায় ১০ বছর লড়াই চালিয়ে ২০১৭ সালের ২০ নভেম্বর প্রয়াত হন বাংলার রাজনীতির প্রিয়দা।

মাত্র ২৫ বছর বয়সে সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের অধিকাংশ সময় দিল্লি ও কলকাতায় কাটালেও নিজের মাতৃভূমি কালিয়াগঞ্জের প্রতি ছিল প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর নাড়ির টান। শত ব্যস্ততার মাঝে প্রতিবছর দুর্গাপুজো দিনগুলো কালিয়াগঞ্জের বাড়িতে কাটাতেন পরিবারের সঙ্গে। এক সময়ে ভবানীমন্দিরে এবং পরবর্তীতে নিজ বাড়ির দুর্গামন্দিরে মায়ের পুজোর আনন্দে মাতোয়ারা হতেন প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সী। ২০১৭ সালে এই জননেতার প্রয়ানের পর একদা তার রাজনৈতিক শিষ্য কার্তিক পালের নেতৃত্বে কালিয়াগঞ্জ পুরবোর্ড সিদ্ধান্ত নেয় শহরের ভবানীমন্দিরের সামনে প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর পূর্ণাবয়ব মূর্তি প্রতিষ্ঠার। এদিন প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর সেই পূর্ণাবয়ব মূর্তির আবরণ উন্মোচন করলেন বিধায়ক তপন দেবসিংহ।