Breaking News

দুই জেলায় মিম প্রার্থীর সমর্থনে জনসভা করলেন আসাদউদ্দিন ওয়েসি

সংবাদ সারাদিন, ইটাহার ও মালদা: উত্তর দিনাজপুর ও মালদা জেলায় মিম প্রার্থীর সমর্থনে জনসভা করলেন আসাদউদ্দিন ওয়েসি। বৃহস্পতিবার ইটাহার সদর বিধিবাড়ি ফুটবল মাঠে এবং মালদার জালালপুর হাইস্কুলের মাঠে জনসভা করেন ওয়েসি। এদিন AIMIM মনোনিত ইটাহার বিধানসভার প্রার্থী মোফাক্কেরুল ইসলামের সমর্থনে জন সভার আয়োজন করা হল ইটাহারে। ইটাহার সদর বিধিবাড়ি ফুটবল মাঠে জনসভায় ব্লকের কয়েক হাজার কর্মী সমর্থকদের উপস্থিতিতে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার জনাব আসাদউদ্দিন ওয়েসি। এই জনসভায় হেলিকপ্টার করে দুপুর নাগাদ বিধিবাড়ি মাঠের হেলিপ্যাডে নেমে জনসভায় বক্তব্য রাখেন তিনি।

বক্তব্য রাখতে গিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের তুলো ধুনা করে বলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল সরকার কিছুই করেনি দশ বছরে। শুধু সাধারণ মানুষকে ধোঁকা দিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি বিজেপি কেউ ভোট না দেওয়ার আহ্বান জানান। পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিকে এনেছে এই তৃণমূল সরকার ও অন্যান্যরা। তাই তিনি বলেন আমাদের বিধানসভার প্রার্থী ইটাহারের ঘরের ছেলে অ্যাডভোকেট মোফাক্কেরুল ইসলাম তাকে ভোট দিন তিনিই মানুষের পাশে থেকে উন্নয়ন করবে ইটাহারের।

এদিনের কর্মসূচিতে প্রধান বক্তা হিসেবে ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়েসি, ইটাহারের AIMIM প্রার্থী মোফাক্কেরুল ইসলাম, ইটাহার ব্লকের বিভিন্ন অঞ্চলের AIMIM নেতৃত্ব সহ পার্শ্ববর্তী বিহার রাজ্যের নির্বাচিত বিধায়করা উপস্থিত ছিলেন।

রাজ্যের সংখ্যালঘুদের শুধুই ব্যবহার করা হয়েছে। কর্মসংস্থান অন্ন জোগাড়ের ব্যর্থ হয়েছে রাজ্যের শাসক দল। মুসলিম সংখ্যালঘুদের শিক্ষিত করে না তুলে তাদের জেলে পুরে রেখেছে রাজ্যের তৃণমূল সরকার। মালদার মালতিপুরের মিম প্রার্থী মতিউর রহমানের সমর্থনে একটি জনসভায় যোগ দিয়ে এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ করেন মিম সুপ্রিমো আসাউদ্দিন ওয়েসি। এদিনের এই জনসভা থেকে রাজ্যের তৃণমূল সরকারের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করেন তিনি।

বৃহস্পতিবার মালতিপুরের জালালপুর হাইস্কুলের মাঠে প্রার্থী মতিউর রহমানের সমর্থনে একটি জনসভা করেন আসাউদ্দিন ওয়েসি। এদিন দুপুর তিনটে নাগাদ হেলিকপ্টারে করে এসে পৌঁছান তিনি। এই সবাই উপস্থিত ছিলেন মালদা জেলা মিম নেতৃত্ব। এদিনের এই জনসভা থেকে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে একহাত নেন তিনি। তিনি বলেন রাজ্যে অধিকাংশ সংখ্যালঘু পরিবারের শুদ্ধ পানিয় জল পান না। সংখ্যালঘুদের জন্য সঠিক পড়াশুনোর ব্যবস্থা করা হয়নি। অধিকাংশ সংখ্যালঘুরাই ন্যূনতম চিকিৎসা পরিষেবা পান‌না। ওয়েসির অভিযোগ সংখ্যালঘুদের শিক্ষা ব্যবস্থা কিংবা কর্মসংস্থান না করে তাদের বঞ্চিত করা হয়েছে। জেলের মধ্যে থাকা অধিকাংশ মানুষ সংখ্যালঘু। এই সরকার সংখ্যালঘুদের সাথে বঞ্চনা করেছে। তিনি বলেন দিদি মাঝে মাঝেই সংখ্যালঘুদের নিয়ে মন্তব্য করেন সংখ্যালঘুরা নাকি দুধ দেওয়ার গোরু। আমাদের কাছ থেকে দুধ নিলেন কিন্তু সেই দুধ থেকে মাখন খেলেন দিদি আর ভাইপো। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারকেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি এই জনসভা থেকে ওয়েসি।

তিনি বলেন কেন্দ্র এবং রাজ্য দিদি ও দাদার সরকার। কেন্দ্র যখন তিন তালাক বিল নিয়ে আসে তখন রাজ্যের তৃণমূলের সাংসদরা সেই বিল থেকে ওয়াক আউট করে। সিএএ বিলের সময় ও তৃণমূলের সাংসদদের দেখা গিয়েছে পেছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে যেতে। বাজপাই সরকারের আমলেও বর্তমান রাজ্যের শাসক দল বিভিন্ন ইস্যুতে সমর্থন করেছিল বিজেপিকে। ফলে কেন্দ্র সরকার রাজ্য সরকার দু’জনে এক। রাজ্যের বাম কংগ্রেস জোট কেউ নিশানা করেন ওয়েসি। তিনি বলেন একদিকে যখন বামফ্রন্ট কংগ্রেসের বিরুদ্ধে লড়াই করছে কেরলে ঠিক তখনই কংগ্রেসের সাথে হাত মিলিয়ে পশ্চিমবঙ্গে জোট বেঁধেছে দুই দল। এদিনের এই সমাবেশে আসাউদ্দিন ওয়েসি মিম প্রার্থী মতিউর রহমানকে জেতানোর আর্জি জানান সভায় আশা মিম সমর্থক ও সংখ্যালঘু মানুষদের।

মালদা জেলার মালতিপুর বিধানসভা কেন্দ্রে প্রায় ৭০% সংখ্যালঘুদের বাস। আর এই বিধানসভা কেন্দ্র কেই পাখির চোখ করে এবারের নির্বাচনে ঝাঁপিয়ে পড়েছে মিম সমর্থকরা। তবে এই বিধানসভা কেন্দ্র বরাবরই বামেদের শক্ত ঘাঁটি বলে পরিচিত। যদিও গত বিধানসভা নির্বাচনে এই বিধানসভা থেকে জয়লাভ করেন কংগ্রেস প্রার্থী আল-বিরুনী। একুশের নির্বাচনে এই বিধানসভা কেন্দ্রে কতটা ছাপ ফেলতে পারবেন হায়দ্রাবাদের দল মিম তা এখন সময়ের অপেক্ষা।