মেয়ে মানুষ হয়ে মাঠে কাজ করব, আর পুরুষ মানুষ হয়ে তুমি বাড়িতে মদ খাবে; পতিরামে স্ত্রীর এমন কথায় অভিমানে আত্মঘাতী স্বামী

সংবাদ সারাদিন, পতিরাম: মেয়ে মানুষ হয়ে আমি মাঠে কাজ করব। আর তুমি পুরুষ মানুষ হয়ে বাড়ি বসে বসে মদ খাবে৷ তাই জোর করে স্বামীকে কাজে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিল স্ত্রী। আর এতেই রাগে অভিমানে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হল স্বামী। বুধবার সকালে চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার পতিরাম থানার গোপালবাটি গ্রাম পঞ্চায়েতের হরিরামপুর এলাকায়। মৃতের নাম শিবু মুর্মু(৩৭)। বাড়ি হরিরামপুরে। পেশায় দিনমজুর। এদিকে বিষয়টি নজরে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়৷ এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পতিরাম থানার পুলিশ। পরে পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে তা ময়নাতদন্তের জন্য বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে পাঠায়। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পতিরাম থানার পুলিশ।

জানা গেছে, শিবু মুর্মুর স্ত্রীর নাম বৃষ্টি বেসরা৷ তাদের একটি ১২ বছরের ছেলে রয়েছে৷ প্রায় ১৩-১৪ বছর আগে বিয়ে করেন তারা৷ অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই অশান্তি লেগে থাকত ওই পরিবারে। মূলত অশান্তি হত মদ খাওয়াকে কেন্দ্র করে৷ প্রায় রোজ দিনই মদ খেয়ে বাড়ি আসত শিবু৷ এদিকে দিন আনা দিন খাওয়া সংসারে কাজ না করলে যে খাওয়ার জুটবে না৷ কিন্তু এই কথা কিছুতেই শুনত না শিবু৷ কাজের সময়ও মদ খেয়ে পড়ে থাকত সে৷ এদিন সকালেও মদ খেয়েছিল শিবু৷ এদিন সকালে কাজ করতে যাওয়ার কথা থাকলেও সে কাজে যায়নি। এনিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে বচসা শুরু হয়৷ অভিযোগ, জোর করে স্ত্রী কাজে নিয়ে যেতে চাইলেও কাজ যায়নি। সেই সময় স্ত্রী স্বামীকে বলেন সে মেয়ে মানুষ হয়েও মাঠে কাজ করছেন। এবং সংসার চালাছেন৷ অথচ সে পুরুষ হয়েও স্ত্রীর উপার্জনে বসে বসে খাচ্ছে। স্ত্রীর এমন কথায় রাগে অভিমানে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হয়। যখন স্ত্রী কাজে বেরিয়ে যায় সেই সময় বাড়ি ফাঁকা থাকার সুযোগে আত্মঘাতী হয় শিবু৷ এদিকে বিষয়টি নজরে আসতেই চঞ্চলা ছাড়াই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পতিরাম থানার পুলিশ। পরে পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে তা ময়নাতদন্তের জন্য বালুরঘাট হাসপাতালে পাঠায়।

এবিষয়ে মৃতের আত্মীয় কৃষ্ণ কিস্কু বলেন, প্রায় প্রতিদিনই মদ খেয়ে থাকত শিবু। এনিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে অশান্তি লেগেই থাকত। মেয়ে মানুষ হয়ে তার স্ত্রী কাজ করত। আর পুরুষ হয়ে সে বসে থাকত৷ স্ত্রীর রোজগারে বসে বসে খাবে সে। এই কথা বলায় রাগে অভিমানে সে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হয়। আজ সকালে বাড়িতে কেউ ছিল না। সেই সময় আত্মহত্যা করে সে। আজ সকালেই স্বামী স্ত্রীর মধ্যে বচসা হয় মদ খাওয়া ও কাজ নিয়ে৷ বচসার পর স্ত্রী কাজে বেরিয়ে যেতেই সে আত্মঘাতী হয়।

এবিষয়ে মৃতের প্রতিবেশী সুরেশ কিস্কু বলেন, স্বামী স্ত্রীর মধ্যেই বচসার জেরে শিবু গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হয়। এদিন সকালে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে সে বাড়ির ভেতরে আত্মঘাতী হয়।

অন্যদিকে এবিষয়ে পতিরাম থানার ওসি বিরাজ সরকার বলেন, খবর পেয়ে মৃতদেহটি উদ্ধার করে তা ময়নাতদন্তের জন্য বালুরঘাটে পাঠানো হয়েছে। পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Spread the love